মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র শবে বরাত স্বাধীন বিচার বিভাগ ও শক্তিশালী সংসদ দেশকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিতে পারে: প্রধানমন্ত্রী আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ৭৬তম আজিজিয়া ইছালে সওয়াব মাহফিল কুল্যায় উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাকিমের নির্বাচনী সভা প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ সকল ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে -সেখ সালাহউদ্দিন রামভদ্রপুর মোকসেদ আলী মন্ডল হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানায়, তাফসীরুল কুরআন মাহফিল ভাদিয়ালী হাইস্কুলের পক্ষ থেকে এমপি ফিরোজ আহমেদ স্বপনকে সংবর্ধনা উপানুষ্ঠানিক ব্যুরোর সহকারী পরিচালকের দায়িত্ব পেলেন সাতক্ষীরা জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবু হেনা মোস্তফা কামাল প্রতি মুহুর্তে মৃত্যুর মুখে ফিলিস্তিনিরা প্রাইম ব্যাংক জাতীয় স্কুল ক্রিকেট ২০২৩-২৪ এর খেলায় সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ৩৭ রানে জয়ী

ইসরাইলের কারাগারে ফিলিস্তীনিরা ছিলো নির্যাতিত

দৃষ্টিপাত ডেস্ক :
  • আপডেট সময় সোমবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২৩

হামাসের হাতে জিম্মি ইসরাইলির অবস্থান সম্মানজনক ঃ ইসরাইলের হামাসে হামলা যুদ্ধ বিরতির মাঝেই দখলদারদের গুলিতে ছয় ফিলিস্তিন নিহত ঃ ইসরাইলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি ভঙ্গের অভিযোগ ইসরাইল বন্দী বিনিময় বিলম্বিত ঃ হামাসের সাথে সমঝোতায় কার্যকর ঃ যুদ্ধ বিরতির মেয়াদ বাড়তে পারে
দৃষ্টিপাত ডেস্ক ॥ গাজা উপত্যকায় আনন্দ উৎসব বিরাজ করছে। গত তিন দিন তেইশ লাখ ফিলিস্তীনি অধ্যুষিত গাজাবাসি নিশ্চিন্তে, শান্তিতে ঘুমাচ্ছে। ঘর গৃহস্থলির কাজ গুছিয়ে নিচ্ছে। খাদ্য আর অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপকরন সংগ্রহে ব্যস্ত সময় অতিক্রম করছে। বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থী আর শিক্ষকের উপস্থিতি বেড়েছে। কিন্তু উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা আর আর আতঙ্ক থেকেই যাচ্ছে। আজ শেষ হচ্ছে যুদ্ধ বিরতি। কাল থেকে আবারও দখলদার ইসরাইলি বাহিনী গণহত্যা চলতে পারে। তবে আশার কথা যুদ্ধ বিরতি দীর্ঘ স্থায়ী হতে পারে কারন হামাস ও ইসরাইলের মধ্যে যে বন্দী ও যুদ্ধবিরতি চুক্তি হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য চার দিন স্থায়ী যুদ্ধ বিরতির পরবর্তি দিনগুলোতে প্রতিদিনের জন্য যুদ্ধ বিরতি চলবে বিনিময়ে ইসরাইলের দশজন নাগরিক মুক্তি পাবে । শনিবার রাতে ও হামাস সতেরজন ইসরাইলিকে মুক্তি দিয়েছে উক্ত মুক্তি প্রক্রিয়া শেষ মুহুর্তে হামাস আটকে দেয়। কারন হিসেবে বলা হয় উত্তর গাজায় ইসরাইলি বাহিনী ত্রান প্রবেশের ক্ষেত্রে বাঁধা দিচ্ছিল। হামাসের স্পষ্ট উচ্চারণ ছিল যে ইসরাইল যদি উত্তর গাজায় ত্রান বাহী গাড়ীর প্রবেশ করতে না দেয় তাহলে তারা ইসরাইলি জিম্মিদের মুক্তি দেবে না। পরবর্তিতে বন্দী ও যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে মাধ্যস্থতা কারী কাতারের শেষ মুহুর্তের প্রচেষ্টায় দুই পক্ষকে স্ব স্ব দাবীতে নিতে সক্ষম হয়। হামাসের দাবীর কাছে আত্মসমর্পন করে উত্তর গাজায় ত্রানবাহী যানবাহন প্রবেশ করায়। বিশ্বের শত শত কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ করেছে ইসরাইলের কারাগার হতে মুক্তি পাওয়া ফিলিস্তীনিদের আনন্দ, উৎসব আর উচ্ছ্বাস তবে মুক্তি প্রাপ্তদের জবান হতে বেরিয়ে এসেছে ইসরাইলী বাহিনী কর্তৃক তাদের উপর নির্মম নির্যাতনের কাহিনী, প্রতিনিয়ত ফিলিস্তীনিদেরকে ইসরাইলের কারাগারে অমানুষিক নির্যাতন পরিচালনা করা হতো। ভিন্নতর চিত্র হামাসের হাতে আটক থাকা ইসরাইলিদের মুক্তির বিষয়টি। ইসরাইলি নাগরিকরা হাসতে হাসতে এবং হামাস সদস্যদের হাতে হাত মিলিয়ে চলে যাচ্ছে। তারা হামাসের বিরুদ্ধে কোন ধরনের অভিযোগ উত্থাপন না করেই বলেছে যে হামাস সদস্যরা তাদের সাথে অমায়িক ও মধুর ব্যবহার করেছে তাদের কে সামান্যতম খারাপ ব্যবহারের মুখোমুখি হতে হইনি। দিনে দিনে ইসরাইল ও ফিলিস্তীনিদের সম্পর্ক কাছাকাছি আসবে এমন প্রত্যাশা বিশ্ববাসির। তবে একথা সত্য যে, ইসরাইল বরাবরই দখলদার, হিংস্র এবং যুদ্ধবাজ। যে কারনে তাদের হামলা নিতান্তই অমানবিক। বিশ্বময় জোরদাবী উঠছে স্থায়ী যুদ্ধবিরতির। হামাস ইসরাইল যুদ্ধ বিরতির মাঝেই হিজবুল্লাহ যোদ্ধারা এবং ইসরাইলি বাহিনীর মাঝে যুদ্ধ থেমে নেই। হিজবুল্লাহ যোদ্ধারা গত সপ্তাহ ব্যাপী ইসরাইলের অভ্যন্তরে হামলা পরিচালনা করছে। ইসরাইলকে হামাসের পাশাপাশি হিজবুল্লাহকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে। এদিকে ভূমধ্য সাগরে ইসরাইলের জাহাজ হুযি বিদ্রোহীদের দ্বারা আটক করার পর এবার একই সাগরে ইসরাইলের জাহাজে হামলার ঘটনা ঘটেছে। উক্ত হামলার বিষয়ে ইসরাইল ইরানকে দায়ী করে বলেছে ইরানের ইন্ধনে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। গাজার উত্তর, পশ্চিম সব এলাকাতেই ত্রান তৎপরতা চলছে। মিশর সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিনই গাজায় ত্রানবাহী ট্রাকের অনুপ্রবেশ করছে। সৌদি আরব, জর্দান সহ আরব দেশগুলো ফিলিস্তীনিদের পাশে দাঁড়িয়েছে আর এ কারনে ইসরাইল এবারের হামলায় অত্যন্ত উদ্বিগ্ন কারন ইরানের পক্ষ হতে ইসরাইল যে কোন সময়ে হামলার শিকার হতে পারে। দখলদার বাহিনীর নির্মমতা এবং হত্যাকান্ড যুদ্ধবিরতির সময়েও থেমে নেই। শনিবার গাজার পশ্চিমতীরে ইসরাইলি বাহিনী গুলিবর্ষন করে ছয় ফিলিস্তীনিকে হত্যা করেছে। গাজার পশ্চিম তীরের জেনিন শহরে এক চিকিৎসক সহ ছয় জনকে গুলি করে হত্যা করেছে। যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হওয়া ইসরাইলের সেনাদের দ্বারা এমন হত্যাকান্ড যুদ্ধ বিরতি লঙ্ঘন বলে দাবী করছে হামাস। হামাসের পক্ষ হতে বলা হচ্ছে ইসরাইল যুদ্ধ বিরতি ভঙ্গ করতে পারে এমন আশঙ্কা হতেই তারা ব্যাপক ভিত্তিক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এদিকে মিশর সরকার গাজায় যুদ্ধ বিরতির মেয়াদ বাড়াতে পারে বলে আভাস দিয়েছে। শনিবার সতের ইসরাইল ও উনচল্লিশ ফিলিস্তীনিদের মুক্তির পর বাদবাকি বন্দীদের মুক্তির বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে যুদ্ধ বিরতি বাড়ার সম্ভাবনা নাকচ করা যাচ্ছে না। ইতিমধ্যে হামাস ইসরাইলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতির অভিযোগ উত্থাপন করেছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা বিশ্ব চাইলে ইসরাইলের যুদ্ধ বিরতিতে রাখা সম্ভব। একথা সত্য এবং বাস্তব ভিত্তিক যে ইসরাইল হামাসের সাথে যুদ্ধ করে বন্দীদের মুক্তি করতে পারবে না বলেই তারা হামাসের সাথে যুদ্ধ বিরতিতে গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2022 dainikdristipat.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com