রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:২৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সাতক্ষীরার স্বর্ণ কন্যা সাবিনাকে শুভেচ্ছা জানালো জেলাবাসি দৃষ্টিপাত সম্পাদকের সহধর্মিনী আনোয়ারা বেগম এর ১ম মৃত্যুবার্ষিকতে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক স¤প্রদায়কে বাস্তবভিত্তিক পদক্ষেপ নেওয়ার আহŸান প্রধানমন্ত্রীর প্রচুর অর্থ ব্যয়েও ঠেকানো যাচ্ছে না নদীভাঙন সাতক্ষীরা জেলা মন্দির সমিতির নবগঠিত কমিটির অভিষেক শ্যামনগরে গাঁজাসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী আটক সাতক্ষীরায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আ’লীগ নেতা কে মারপিট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ক্ষয়ক্ষতি \ থানায় মামলা সব বিভাগেই বৃষ্টির আভাস আশাশুনি মটর সাইকেল চালক সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন \ শাহেদ সভাপতি, ফেরদৌস সেক্রেটারী নির্বাচিত নাজিমগঞ্জে পূজার কেনাকাটা জমে উঠেছে

টিকার অভাবে শিক্ষাবঞ্চিত হচ্ছে শিশুরা -ইউনিসেফ

দৃষ্টিপাত ডেস্ক :
  • আপডেট সময় শনিবার, ২ এপ্রিল, ২০২২

এফএনএস বিদেশ : করোনার প্রকোপ কমে আসায় স্বাভাবিক ছন্দে ফিরেছে বেশির ভাগ দেশ। বয়স্কদের পাশাপাশি জোর দেয়া হচ্ছে শিশুদের টিকা নিশ্চিতে। এর ফলে বিশ্বের নানা প্রান্তে খুলে দেয়া হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে ইউনিসেফ বলছে, প্রায় ৩ বছরের ঘাটতি পুষিয়ে ওঠা খুব সহজ হবে না। প্রতিবেদন বলছে, বিশ্বের ২৩টি দেশের ৪০ কোটি ৫০ লাখ শিশু এখনো টিকা না পাওয়ায় ব্যহত হচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা। করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সাল থেকে বিশ্বের ১৪ কোটি ৭০ লাখ শিশু স্কুলে গিয়ে পড়াশুনার সুযোগ থেকে বঞ্ছিত হয়েছে। দুই বছর পর এখনো স্কুলে ফিরতে পারেনি ২৩ দেশের ৪০ কোটি ৫০ লাখ শিশু, এমনটাই জানিয়েছে শিশুরা স্কুলে যেতে না পারায় শংকা জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। করোনার বিধিনিষেধ বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে শিথিল করে স্কুল কলেজ খুলে দেয়া হলেও অনেক দেশেই টিকার অভাবে শিক্ষা বঞ্চিত হচ্ছে শিশুরা। বিশেষ করে ফিলিপাইন্স, হন্ডুরাস, সলোমন আইল্যান্ড এবং ভানুয়াতুর ৭০ শতাংশ প্রাইমারি এবং মাধ্যমিক স্কুল বন্ধ আছে শুধুমাত্র টিকার অভাবে। উগান্ডায় প্রায় দুই বছর ধরে স্কুলগুলো বন্ধ থাকার পর ২০২২ সালের জানুয়ারিতে স্কুল পুনরায় খোলার পর স্কুলগামী শিশুদের প্রতি ১০ জনের মধ্যে একজন স্কুলে ফেরেনি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন আফ্রিকা-এশিয়ার বেশিরভাগ দেশে স্কুুল না খুললেও খুলে দেয়া হয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তাই দারিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী পরিবারগুলো শিশুদের স্কুলে না পাঠিয়ে জীবিকা নির্বাহের জন্য কাজে পাঠাচ্ছেন। এছাড়াও প্রতিবেদনে দেখা যায় সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছে সেসব শিশু, যাদের শিক্ষা জীবন এখনো শুরুই হয়নি। এসব শিশুদের শিক্ষার ঘাটতি পূরণে ৭ বছরের বেশি সময় লেগে যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2022 dainikdristipat.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com