বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১২:০২ পূর্বাহ্ন

শ্যামনগরের স্কুল ছাত্রীকে জোর পুর্বক ধর্ষন \ দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি

দৃষ্টিপাত ডেস্ক :
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২২

শ্যামনগর ব্যুরোঃ শ্যামনগরের বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের কলবাড়ী গ্রামের এক এসএসসি পরীক্ষার্থী ধর্ষিত হয়েছে। ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার রাত্র আনুমানিক ৮ টার সনাতন ধর্মাবলম্বীদের চৈত্র সংক্রান্তির চড়ক পুজার বালাকি শুনে ফেরার পথে বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়ন পরিষদের সন্নিকটে রাধাকৃষ্ণ মন্দিরের পাশে নওয়াঁবেকী রপ্তান বাড়ীর দুটি ছেলের সাথে দাঁড়িয়ে কথা বলছিলেন কলবাড়ী গ্রামের নিশিকান্ত মিস্ত্রির মেয়ে ও তারই কাকাতো বোন শ্যামাকান্ত মিস্ত্রির মেয়ে পুজা মিস্ত্রি। এমতাবস্থায় সেখান দিয়ে যাচ্ছিলেন কলবাড়ী গ্রামের স্বপন বাইনের পুত্র রাকেশ বাইন (২৩)। রাকেশ অপরিচিত ছেলেকে ঐ মেয়েদের সাথে কথা বলা অবস্থায় দেখে এসময় ছেলে দুটিকে উত্তম মাধ্যমের ভয় দেখিয়ে তাদেরকে দ্রুত স্থান ত্যাগ করতে বলে। তারপর রাকেশ কাছে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে বুড়িগোয়ালিনীর সাবেক চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল এর ভাগ্নে আড়পাঙ্গাশিয়া গ্রামের নিমাই চৌকিদারের ছেলে রাহুল চৌকিদার (২২) ও কলবাড়ী গ্রামের উদয় হালদারের ছেলে বাদল হালদার (২১) কে ডাকে। তখন ঐ মেয়ে কে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে রাকেশ যা নির্দেশ করবে, তাই তাই করতে বলে। তখন তারা রাজি না হলে তাদের সাথে জোর জবরদস্তি করার এক পর্যায়ে কাকাতো বোন পালিয়ে যায়। সাথে সাথে রাকেশ ও রাহুল দুজনে মিলে অন্যজোনকে জোরপূর্বক রাকেশের বাড়ীতে নিয়ে যায় বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার রাকেশ এবং তার সহযোগী রাহুল দুজনের মোবাইল ফোনে তার আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ধারন করেন এবং বলতে থাকেন, যদি এখন রাকেশ এর সাথে শারিরীক সম্পর্কে না জড়ায় তবে এই ছবি, ভিডিও ফেক আইডি দিয়ে ফেসবুকে পোস্ট করবে। রাকেশ রুমের ভিতরে সাউন্ড বক্সের ভলিউম বাড়িয়ে দিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। তারপর রাকেশের মা-বাবা চড়ক পুজার বালাকি শেষ করে বাড়ীতে আসবে, এই ভেবে তাকে মুখ চেপে ধরে আনুমানিক রাত্র সাড়ে দশটার দিকে বাড়ির বাইরে ওয়াপদা বেড়িবাঁধের কাছে রবীন্দ্র মিস্ত্রির বাগানে নিয়ে। জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এসময় তার চিৎকার-চেচাঁমেচি করলে তার মুখ চেপে ধরে শ্বাসরোধ করার হুমকি দেওয়া হয়। পরবর্তীতে রাত্র ১২ টার দিকে তার অসুস্থ শরীর নিয়ে তার বাসায় যান। পরেরদিন সোমবার প্রাইভেট পড়া শেষ করে বাড়িতে যাওয়ার সময় তার ক্লোজ বান্ধবী গতিবিধি দেখে তাকে তার মন খারাপ বা শারিরীক অবস্থা সম্পর্কে জানতে চান, তখন কেঁদে কেঁদে সব ঘটনা খুলে বলে এবং কাউকে জানাতে নিষেধ করেন। কিন্তু বান্ধবী সোমবার বিকালে ধর্ষিতার মাকে সব খুলে বলে। মা তার মেয়ের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে জড়িত রাকেশ ও রাহুল সহ যারা এই ঘটনায় জড়িত তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে এলাকাবাসী, সাংবাদিকবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি সকলকে বিষয়টি অবহিত করেন। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন ছিলেন এবং পরিবার সুষ্ঠু বিচারের দাবীতে শ্যামনগর থানায় এজাহার জমা দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2022 dainikdristipat.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com