বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৬:৩৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
২০৩০ সালের আগেই এসডিজি লক্ষ্য অর্জিত হবে -প্রধানমন্ত্রী ইসলামকাটির পল­ীতে সুজায়েত আলীর ডেইরি ফার্মের আলো ছড়ানো গল্প বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টূর্নামেন্ট ২০২২ বালক/বালিকা উদ্বোধন করলেন এমপি রবি শ্যামনগরে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে এক যুবকের মৃত্যু কালিগঞ্জে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধ \ দায়ের কোপে চাচা খুন, ভাইপো গ্রেপ্তার শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ সাতক্ষীরা সদর খাদ্য গুদামে অভ্যন্তরীণ বোরো ধান ও চাল সংগ্রহ উদ্বোধন ভোমরা স্থলবন্দর হ্যান্ডলিং/গোডাউন শ্রমিক ইউনিয়ন সাধারণ সভা কালিগঞ্জে দু’ সন্তানের জননীকে নির্যাতনের পর হত্যা \ স্বামী পলাতক চমৎকার ব্যাটিংয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করল বাংলাদেশ

সাতক্ষীরার মাঠে মাঠে ধান রোপনের শেষ মুহুর্তে ব্যস্ত কৃষকরা

দৃষ্টিপাত ডেস্ক :
  • আপডেট সময় শনিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

দৃষ্টিপাত রিপোর্ট \ চলছে চাষাবাদ, কৃষকের মুখে ক্লান্তীর ছোয়া কিন্তু আশা আর স্বপ্নের সম্মিলন থেমে নেই। বৃষ্টিতে ভিজে রৌদ্রে পুড়ে সোনার ফসল বপন করছে। দেখতে দেখতে কাদা মাটিতে রোপন করা আমন ধান ঘরে উঠবে কৃষকের, পাকা ধানের সোদাগন্ধে কৃষক কৃষানীর মন ভরে যাবে। আগামী বৈশাখের মধ্যে রোপন করা ধান ঘরে উঠে এমনটি জানালেন কৃষক শরিফুল ইসলাম। সাতক্ষীরার বাস্তবতায় বরাবরই এই জেলা শষ্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত। জেলার কৃষকরা হরেক ধরনের ধান চাষ করে থাকে। গত কয়েকদিন মাঠে মাঠে সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে কৃষককুল শেষ মুহুর্তে ধান রোপন করছে। একজন কৃষক জানালেন এই ধান গরমের ধান, এবং সেচের উপর নির্ভরশীল, উৎপাদন হলেই হয়। জেলার আশি ভাগ জমিতে ধান রোপন শেষ। আঠাশ ধানের প্রতি কৃষকদের আগ্রহ বেশী জানা যায় আঠাশ জাতের ধানের উৎপাদন যেমন আশানুরুপ অনুরুপ বাজার মূল্য লাভজনক। জেলার বিপুল পরিমান জমিতে চাষকরা আঠাশ ধান বরাবরের ন্যায় এবারও যথাযথ উৎপাদন হবে। গরমের এই চাষাবাদে উৎপাদন খরচ কম নয়। বর্তমান শ্রমিক মূল্য, সার, কীটনাশক সহ বিভিন্ন ধরনের পরিচর্যায় খরচ অনেক বেশী, প্রাকৃতিক দূর্যোগ এবং দুর্বিপাক এই সময়ে খুব বেশী দেখা না গেলেও বৈশাখের অনাকাঙ্খিত শিলা বৃষ্টি, ঝড় অনেক সময় ধানের ক্ষতি করে থাকে। কৃষকরা জানান অনেকে নাবি করে চাষ করে যে কারনে কাল বৈশাখির তান্ডবে পড়ে, অবশ্য এ ক্ষেত্রে কৃষকের কোন ধরনের অলসতা থাকে না। শষ্যের জমিতে ধান রোপনের জন্য জমি প্রস্তুত করতে সঙ্গত কারনে কিছুটা সময় লেগে যায়। উৎপাদনের সাথে জড়িত কৃষকদের একটি বড় অংশ ধার, ঋন, সুদের টাকা উপর নির্ভরশীল থাকে। কৃষকদের দাবী এবং প্রত্যাশা কৃষকদের জন্য অধিকতর সুযোগ সুবিধা প্রদান করলে চাষাবাদের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি হবে। এক শ্রেণীর মধ্যস্বত্ত¡ভোগীদের লোলুপ দৃষ্টির বেড়াজালে কৃষক কুল, উৎপাদনের লাভ্যাংশে মহাজন এবং সুদখোরদের পকেটে যায়। জেলার কৃষকদের মাঝে চাষাবাদের এবং কৃষি কাজের গতি সঞ্চার করনে সব ধরনের ব্যবস্থা কর্তৃপক্ষকে গ্রহন করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2022 dainikdristipat.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com