মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৪২ অপরাহ্ন

সাতক্ষীরার সবজি বাজারের মূল্য বৃদ্ধি সেই সাথে সংকট আলু আর কাঁচামাল কি সিন্ডিকেট চক্রের হাতে জিম্মি?

দৃষ্টিপাত ডেস্ক :
  • আপডেট সময় শনিবার, ২২ জুলাই, ২০২৩

দৃষ্টিপাত রিপোর্ট \ সবজির বাজার আবারও অস্থির হয়ে পড়েছে। সাতক্ষীরার সবজির বাজারের মূল্য বৃদ্ধির পাগলা ঘোড়া ছুটে চলার পাশাপাশি সবজি সংকট ও দেখা দিয়েছে। অর্থাৎ চাহিদার তুলনায় সবজির উপস্থিতি যৎসামান্য আর এ কারনে মূল্যবৃদ্ধি এবং সংকট উভয়ই সমভাবে সম্মুখপানে। সারা বছরের সবজি হিসেবে খ্যাত গোল আলুর মূল্য অতীতের সব ধরনের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। এই আলুর মূল্য বৃদ্ধির ঘটনা দেশের সর্বত্র তার প্রভাব সাতক্ষীরাতেও বিদ্যমান। প্রতি কেজি গোল আলু কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৩০/৩৫ টাকায়। পাইকারী বাজার এবং খুচরা বাজারে মূল্যের ভারপ্রাপ্ত সংঘাতময়। এক শ্রেনির অসাধু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটে আলুর বাজার জিম্মি। এর পাশাপাশি হিমাগার গুলোতে বিপুল পরিমান আলু সংরক্ষিত আছে। মওজুদদার আলী ব্যবসায়ীরা বাজারের তথা ভোক্তা সাধারনের চাহিদানুযায়ী আলু সরবরাহ করছে। কাঁচাঝালের ঝাজের তীব্রতা চলমান। ভারত থেকে কাঁচা ঝালের আমদানী অব্যাহত থাকলেও মূল্য কমছে না। সাতক্ষীরার হাটবাজার গুলোতে কাচা ঝালের মূল্য কেজি প্রতি ৩০০/৩৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কাঁচামাল ও সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে কিনা তা তদন্তের বিষয়। চলতি বর্ষা মৌসুম সবজি উৎপাদনের মোখ্যম সময়। বছরের শীত মৌসুমে ও বর্ষা মৌসুমে সবজির মূল্য স্বাভাবিক থাকে কিন্তু এবারের বর্ষা মৌসুমে সবজির বাজার কেবল চড়া নয় রিতিমত অগ্নিমূল্য ধারন করেছে। সাতক্ষীরার হাটবাজার গুলোতে বর্তমানে ঢেড়শ, পুইশাক, বিভিন্ন ধরনের শাক, ওল, কচুরমুখি, কচুর লতি, পটল, কাচকলা, বড়বেগলো কলা, উচ্চে, কাকরুল, পেপে, চালকুমড়ো, মিষ্টি কুমড়ো, মানকচু, ভেটকচু, কেওড়া প্রভৃতি সবজির উপস্থিতি বিদ্যমান। প্রতিটি সবজির মূল্য সাধারনের জন্য কষ্টকর। পুইশাক সাধারনত মূল্যসহনীয় সবজি হিসেবে খ্যাত। অন্যদিকে সাতক্ষীরার অতীতের যে কোন সময় অপেক্ষা পুঁইশাকের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই পুইশাক কেজি প্রতি ২০/২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আমার কৃষক উৎপাদিত পুইশাকের মূল্য পাচ্ছে এবং সাতক্ষীরার পুইশাক রাজধানী ঢাকা সহ দেশের অপরাপর বাজারের চাহিদা পুরন করছে, কাঁচকলা সারা বছরের সবজি বলা হয় বার মাসের সবজি, কাঁচকলা, বড়বেগলো কলার মূল্য কেজি প্রতি বর্তমানে ৪০/৪৫ টাকা। পেপের বাজারের অস্বাভাবিকতা সেই সাথে সংকট সমানভাবে দেখা দিয়েছে। ঔষধী সবজি হিসেবে খ্যাত পেপের পুষ্টিগুন ও ব্যাপক। বাজারে পেপে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫/৪০ টাকায় অথচ সারা বছরই পেপের মূল্য থাকে ১৫/২০ টাকা। ঢেড়স এবার সাতক্ষীরায় ব্যাপক উৎপাদনের ক্ষেত্রে পৌছালেও ঢেড়সের মুল্য কমছে না। কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৪০/৪৫ টাকায়। বরাবরই লাউএর চাহিদা ভোক্তা সাধারনের জন্য কাঙ্খিত। মুল্যও থাকে সহনশীল পর্যায়ে মাঝারী আকারের লাউয়ের মূল্য ২০/২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এই সময়ে বাজারে উঠতে শুরু করেছে চাল কুমড়া, সবজি হিসেবে চাল কুমড়ার চাহিদার শেষ নেই। সাতক্ষীরার হাট বাজার গুলোতে প্রতিটি চালকুমড়া প্রতিটি চালকুমড়া ৩০/৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মিষ্টিকুমড়ার উপস্থিতি ব্যাপক কিন্তু মূল্য কেজি প্রতি ৩০/৩৫ টাকা। সাতক্ষীরার সবজি বাজার দৃশ্যতঃ কোন কোন সবজি এক শ্রেনির সিন্ডিকেট কর্তৃক পরিচালিত। শহরের বড় বাজারে কয়েকটি পাইকার সবজির বাজার একই সাথে উপজেলার প্রধান প্রধান মোকাম গুলোতে সবজির আড়ৎ গুলো মূল্য নির্ধারনের ক্ষেত্রে কাঙ্খিত ভূমিকা পালন করে। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য হিসেবে সবজির বিকল্প নেই। আর তাই এই বাজারে অসাধুতা, অনৈতিকতা ও সিন্ডিকেট সাধারন মানুষের জন্য অধিকতর সমস্যা। বাজার নিয়ন্ত্রনে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তর অবিলম্বে পদক্ষেপ নেবেন এমন প্রত্যাশা সাধারন জনগোষ্ঠীর।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2022 dainikdristipat.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com